বুধবার ১৯ জানুয়ারি ২০২২

| মাঘ ৬ ১৪২৮

মহানগর নিউজ :: Mohanagar News

প্রকাশের সময়:
২০:২৭, ১ ডিসেম্বর ২০২১

চবি প্রতিনিধি

জালিয়াতি করে চবিতে উত্তীর্ণ দু’জন—দাবি জাবিতে আটক শিক্ষার্থীর

প্রকাশের সময়: ২০:২৭, ১ ডিসেম্বর ২০২১

চবি প্রতিনিধি

জালিয়াতি করে চবিতে উত্তীর্ণ দু’জন—দাবি জাবিতে আটক শিক্ষার্থীর

জালিয়াতি করে জাবিতে চান্স, সাক্ষাৎকারে এসে ধরা মোস্তফা কামাল

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) এবারের ভর্তি পরীক্ষায় ‘ডি’ ইউনিটে ৭৯তম আশিক ও ২৪৯তম হওয়া ফরহাদ নামে দুই শিক্ষার্থী জালিয়াতির মাধ্যমে উত্তীর্ণ হয়েছেন বলে দাবি করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার সাক্ষাৎকার দিতে এসে আটক মোস্তফা কামাল (১৯) নামে এক শিক্ষার্থী। 

বুধবার (১ ডিসেম্বর) বেলা ১১টায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের গাণিতিক ও পদার্থ বিজ্ঞান অনুষদ থেকে তাকে আটক করা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদে এসব চাঞ্চল্যকর তথ্য দেন মোস্তফা কামাল। 

আটক মোস্তফা কামালের বাড়ি টাঙ্গাইল জেলার তাড়ুটিয়া উপজেলায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের গাণিতিক ও পদার্থ বিজ্ঞান অনুষদে জালিয়াতির মাধ্যমে চান্স পাওয়া মোস্তফা কামালের ভর্তি পরীক্ষার মেরিট পজিশন আসে ৩০০ তম।  

মোস্তফা কামাল গণমাধ্যমকে বলেন, একই উপায় অবলম্বন করে তার দুই বন্ধু আশিক ও ফরহাদ চবিতে ৭৯ ও ২৪৯ তম হয়েছে। আর এসব কাজ ৪ লাখ টাকার বিনিময়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মেহেদীর মাধ্যমে হয়েছে। 

মোস্তফা কামালের ভাষ্য অনুযায়ী চবির 'ডি' ইউনিটে অসদুপায় অবলম্বন করে উত্তীর্ণ হওয়া ওই দুজনের নামের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন চবির আইসিটি সেলের পরিচালক ড. মোহাম্মদ খায়রুল ইসলাম। তিনি মহানগর নিউজকে বলেন, ‘আমি চেক করে দেখেছি। যে ৭৯ তম হয়েছে তার নাম আশিক এবং ২৪৯ তম হওয়া আরেক শিক্ষার্থীর নাম ফরহাদ।’

চবির সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও ‘ডি’ ইউনিটের কো-অর্ডিনেটর ড. মুস্তাফিজুর রহমান সিদ্দিকী বলেন, ‘বিষয়টি আমি শুনেছি। আগামীকাল খোঁজ খবর নিবো।’

জানতে চাইলে চবি প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভূঁইয়া সন্ধ্যা ৭টা নাগাদ মহানগর নিউজকে বলেন, ‘আমরা ঘণ্টা খানেক আগে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে পেরেছি। ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে বিচার-বিশ্লেষণ করছি।’

এর আগে গত ৩০ ও ৩১ অক্টোবর প্রতিদিন সকাল-বিকেল দুই শিফটে ‘ডি’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ১ হাজার ১৬০টি আসনের বিপরীতে সম্মিলিত এই ইউনিটের পরীক্ষায় অংশ নেয় ৩৫ হাজার ৫০২ জন।

অন্যসব ইউনিটের ফলাফল দুই-এক দিনের মধ্যে প্রকাশ করলেও ‘ডি’ ইউনিটের ফল দিতে সময় লাগে ৭ দিন। আর এসব নিয়ে বিভিন্ন মহলে চলে নানামুখী আলোচনা-সমালোচনা। অনেকে আবার প্রশ্ন তোলেন ভর্তি পরীক্ষার স্বচ্ছতা নিয়েও!

এদিকে ডি-১ উপ-ইউনিটে পরীক্ষা না দিয়েও একজন উত্তীর্ণ হওয়ার ঘটনা ঘটে। যদিও কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে অপর এক পরীক্ষার্থীর ভুলের জন্য এমনটা ঘটেছে।

মহানগর নিউজ/এআই