বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর ২০২১

| অগ্রাহায়ণ ১৮ ১৪২৮

মহানগর নিউজ :: Mohanagar News

প্রকাশের সময়:
১৮:৩৯, ২৫ নভেম্বর ২০২১

কক্সবাজার প্রতিনিধি

এক প্রার্থীরই ৩০ নির্বাচন অফিস, ৩৫ তোরণ!

পেকুয়ায় নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন—প্রার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

প্রকাশের সময়: ১৮:৩৯, ২৫ নভেম্বর ২০২১

কক্সবাজার প্রতিনিধি

পেকুয়ায় নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন—প্রার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

৩০ নির্বাচনী অফিস, ৩৫ তোরণ স্থাপন করে আচরণবিধি লঙ্ঘন চেয়ারম্যান প্রার্থী ওয়াসিমের

নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে ৩০টি অফিস ও ৩৫টি তোরণ স্থাপন করে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রচারণা চালাচ্ছেন কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিম।

এদিকে নির্বাচন আচরণবিধি লঙ্ঘন হয়েছে বলে লিখিতভাবে জানানোর পরও অফিস-তোরণ না সরানোয় চেয়ারম্যান প্রার্থী শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিমকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম। 

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ নোটিশ জারি করে উপজেলা নির্বাচন অফিস।

নোটিশে উল্লেখ করা হয়, মগনামা ইউপি নির্বাচনে মটরসাইকেল প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী শরাফত উল্লাহ চৌধুরীকে তিনটির অধিক নির্বাচনী অফিস এবং গেট ২১ নভেম্বর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বেধে দেওয়া সময় পার হয়ে গেলেও কোনো নির্বাচনি অফিস এবং গেট সরাননি তিনি। 

স্থানীয় সূ্ত্রে জানায়, গত ইউপি নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হয়ে ধানের শীষ প্রতীকে লড়াই করে চেয়ারম্যান হয়েছিলেন ওয়াসিম। এর পরেই ধীরে ধীরে তিনি সংসদ সদস্য জাফর আলমের আস্থাভাজন হয়ে উঠেন। 

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও মগনামা ইউপি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম বলেন, ‘২৫ নভেম্বর বিকাল ৫টার মধ্যে কেন তিনি তিনটির অধিক নির্বাচনী অফিস ও গেট অপসারণ করেননি এর সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে। তাও দেননি ওই প্রার্থী।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি চেয়ারম্যান প্রার্থী ওয়াসিমের নির্বাচনি আচরণ বিধি লঙ্ঘনের বিষয়টি পেকুয়া থানাকে ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে লিখিত ভাবে জানিয়েছি। তিনি যেহেতু কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব দেননি তাই তার বিরুদ্ধে এবার আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

তবে অভিযুক্ত প্রার্থী শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিম বলেন, ‘উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আমাকে একটি কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন। তবে প্রচারনায় ব্যস্ত থাকায় আমি জবাব দিতে পারিনি। আগামীকাল আমার ব্যাখ্যা জানাবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘যতগুলো অফিস ও তোরণের কথা নোটিশে বলা হয়েছে ততগুলো আমার নাই। যদি থাকে তবে প্রশাসন সব ভেঙ্গে ফেলুক। আমি নির্বাচনী আচরণ বিধি ভঙ্গ করার মত প্রার্থী নই।’

মহানগর নিউজ/এআই