বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর ২০২১

| অগ্রাহায়ণ ১৮ ১৪২৮

মহানগর নিউজ :: Mohanagar News

প্রকাশের সময়:
১৩:৩৩, ১১ অক্টোবর ২০২১

‘তুই আমারে চিনস, আমি কক্সবাজারের বড় কুতুব’

প্রকাশের সময়: ১৩:৩৩, ১১ অক্টোবর ২০২১

‘তুই আমারে চিনস, আমি কক্সবাজারের বড় কুতুব’

সিআইইউ’র জনসংযোগ কর্মকর্তা কুতুব উদ্দিন

কক্সবাজার প্রতিনিধি »

‘তুই আমারে চিনস, আমি কক্সবাজারের বড় কুতুব। আমার ওপরে কথা বলবে এমন কেউ এই কক্সবাজারে নাই। আমি চাইলেই যে কাউকে মারধর করে নাশকতা, অস্ত্র ও ইয়াবা মামলা দিয়ে পুলিশে দিতে পারি। অতীতেও মারতে মারতে এই ইউনিভার্সিটির বদিউল আলমকে ডলফিন চত্বরে নিয়ে ইয়াবাসহ পুলিশে দিয়েছিলাম। তোকে তোর কোনো বাপ বাঁচাতে পারবে না আমার কাছ থেকে।’ 

এমন একটি অডিও বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। পরে সেই অডিও ধরে খোঁজ নিয়ে জানা যায় এভাবেই হুমকি দিতে দিতে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সহকারী আইটি কর্মকর্তা সাজ্জাদুর রহমান মুরাদকে মারধর করেন একই বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা (পিআরও) কুতুব উদ্দিন। ২ অক্টোবর দুপুরে ইউনিভার্সিটিতেই  কর্তৃপক্ষের উপস্থিতিতেই এমন হুমকি দিয়েই মুরাদকে মারধর করে কুতুব উদ্দিন। 

মারধরের শিকার সাজ্জাদুর রহমান মুরাদ বলেন, শুধু ২ অক্টোবর নয়, এর আগে কুতুব উদ্দিন আমাকে কয়েক দফা মারধর করেছে। কিন্তু প্রতিবারই আমি তাকে সিনিয়র কর্মকর্তা হিসেবে ক্ষমা করে দিয়েছি। কিন্তু এখন তার হুমকি আর মারধরে আমি দিশেহারা হয়ে গেছি। আমি জীবন নিয়ে সংশয়ে রয়েছি। এ কারণে বাধ্য হয়ে প্রথমে ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষকে লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। কিন্তু কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় আজ (সোমবার) কক্সবাজার সদর আদালতে একটি এজাহার দায়ের করেছি। 

আদালত সূত্র থেকে জানা যায়, সাজ্জাদকে ২০ সেপ্টেম্বর ও ২ অক্টোবর দু’দফা মারধর ও হুমকি দিয়েছে কুতুব উদ্দিন। ওই দুটি হামলা ও হুমকির ভিডিও এবং অডিও রেকর্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউবে ভাইরাল হয়েছে। 

বাদিপক্ষের আইনজীবী অরুপ বড়ুয়া তপু বলেন, আদালত বিষয়টি আমলে নিয়েছেন। ঘটনা তদন্তের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরকে  দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আগামী ৫ ডিসেম্বর মামলার পরবর্তী দিন ধার্য করো হয়েছে। এর মধ্যে প্রক্টরকে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত কুতুব উদ্দিন বলেন, ১৯ সেপ্টেম্বর ইউভিার্সিটির একটি স্টোররুম খোলা ছিল। যেখানে মূল্যবান আসবাবপত্র থাকে। সে কারণে ২০ সেপ্টেম্বর সাজ্জাদের কাছ থেকে আমি চাবি নিতে চাই। কিন্তু সে চাবি দিতে রাজি না হওয়ায় তাকে আমি থাপ্পর দিয়েছি। পরে ক্ষমাও চেয়েছি। তবুও সেদিনের ভিডিও সাজ্জাদ ফেসবুকে দেয়। এ বিষয়টি নিয়েই ২ অক্টোবর সাজ্জাদের চাচাত ভাই ইউনিভার্সিটির ফিন্যান্স ডিরেক্টর জসিম উদ্দিনকে অভিযোগ করে। তখন আমি মুখ ফসকে বিভিন্ন মামলা দিতে পারি বলেছি এটা সত্য। 

বাদি সাজ্জাদ বলেন, কুতুব উদ্দিন ২ অক্টোবর আমাকে হুমকি দিয়ে বলেছে, তোর ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান সালাহউদ্দিন আমাকে কিছু করতে পারবে না।  কুতুব না চাইলে এই শহরেও নাকি আমি থাকতে পারব না। এমনকি আমাকে আমার গ্রামের বাড়ি থেকে তুলে নেওয়ার হুমকি দিয়েছে কুতুব উদ্দিন।

এ ব্যাপারে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রক্টর শাকিল আহমেদ বলেন, আদালতের আদেশ এখনো পাইনি। তবে আমার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেছিল সাজ্জাদ। আমি ভিডিও এবং অডিও দুটোই দেখেছি। বিষয়টি আমি উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি।

মহানগর নিউজ/এসএ